বাংলাদেশ , বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশের প্রতি আগে মানুষের যে অনীহা ছিল তা আর নেই

লেখক : সম্পাদক | প্রকাশ: ২০২০-০২-১৩ ২১:৪৫:২৫

পুলিশের প্রতি আগে মানুষের যে অনীহা ছিল তা আর নেই বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীটির প্রতি মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস বেড়েছে বলে জানান তিনি। এটাই সব থেকে বেশি প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন সরকারপ্রধান।

সোমবার প্রধানমন্ত্রী তার কার্যালয়ে ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০২০’ উপলক্ষে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

একটি দেশের উন্নয়নে জননিরাপত্তার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ আখ্যায়িত করে পুলিশের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা যদি ঠিকমত তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারে তখনই সেটা সম্ভব। আর আপনারা এটা করতে পেরেছেন বলেই আজকে আমরা উন্নতি করতে পেরেছি।’

এজন্য তিনি পুলিশ বাহিনী সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘পুলিশের জন্য আমরা যেটুকু করেছি তার আমাদের চিন্তা থেকেই করেছি। এজন্য কোনো দাবি বা তেমন কিছু করতে হয়নি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতি যত শক্তিশালী ও মজবুত হবে তত বেশি আমরা আমাদের সকল প্রতিষ্ঠানকে আরও উন্নত করতে পারবো। আজ বাংলাদেশ উন্নয়নের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক বিশ্বে উন্নয়নের রোলমডেল এবং উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে। এটা আমাদের ২০২৪ সাল পর্যন্ত ধরে রাখতে হবে যাতে উন্নয়নশীল দেশের স্থায়ী স্বীকৃতি অর্জন করতে পারি।’

প্রধানমন্ত্রী ২০১৭ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনকালকে মুজিব বর্ষ হিসেবে তার সরকারের ঘোষণার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘বাংলাদেশ বর্তমানে ক্ষুধামুক্ত হয়েছে ঠিকই কিন্তু এখনো বাংলাদেশে যারা দরিদ্র বা গৃহহীন, কর্মক্ষমতাহীন তাদের প্রত্যেকের জীবনমানটা যাতে উন্নত হয়, তারা কেউ যেন ক্ষুধার কষ্টে না ভোগে, রোগে শোকে কষ্ট না পায়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বাধীনতার মূল্যবোধ যেটা আমরা ’৭৫ এর পর হারিয়ে ফেলেছিলাম তা আজকে আবার ফিরে পেয়েছি। মানুষের মনে আজ স্বাধীনতার মূল্যবোধ জাগ্রত। আবার সেই নতুন চেতনা নিয়েই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে।’

সবাইকে সতর্ক থাকার আহবান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের স্বাধীনতার মূল্যরোধটা আর যেন হারিয়ে না যায়। এই অগ্রযাত্রা ভবিষ্যতে যাতে কেউ আর ব্যাহত করতে না পারে। ইনশাল্লাহ বাংলাদেশকে আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ হিসেবেই প্রতিষ্ঠিত করবো।’

শিল্পাঞ্চল পুলিশসহ বিভিন্ন বিশেষায়িত পুলিশ ইউনিট বিভিন্ন জায়গায় খোলায় পুলিশ কর্মকর্তাদের পদায়ন এবং পদোন্নতির সুযোগ বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা একশ’ শিল্পাঞ্চল গড়ে তুলছি। কাজেই আমাদের শিল্প পুলিশকে আরও শক্তিশালী করতে হবে এবং এখানে নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিতে হবে, সেটা আমরা করবো।’

পুলিশ বাহিনীর সদস্য সংখ্যা বর্তমানে বেড়ে দুই লাখ ২২ হাজার ৭২১ জনে উন্নীত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘পুলিশ সদস্যদের রিক্রুটমেন্টের সময় শুধু নয় পদোন্নতির সময়ও ট্রেনিংয়ের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।’

বিআরটিএ,বিআইডব্লিউটিএ এবং মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে পুলিশ সদস্যদের প্রতিনিধি থাকা প্রয়োজন এবং তার সরকার সেই উদোগ নেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) ইতোমধ্যেই পুলিশ সদস্যদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। দুদক কোনো গ্রেপ্তারের এখতিয়ার নেই। গ্রেপ্তারের জন্য তাদের কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদেরই বলতে হবে। তারা নির্দেশ দিতে পারে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন এবং আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাভেদ পাটোয়ারী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

Print Friendly, PDF & Email